ফতুল্লায় কবরস্থানের নামে জমি দখলের পায়তারা, ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী 

211

বিশেষ প্রতিবেদক :

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীন পঞ্চবটির ধর্মগঞ্জ এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে পবিত্র কবরস্থানের নামে জমি দখল করে প্লট নির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে একটি কুচক্রি মহল। স্থানীয় চেয়ারম্যানের শেল্টারে ভূয়া দলিল বানিয়ে এবং বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি ও মারধোর করে ক্রয়সূত্রে মালিকানা দাবিদার একাধিক পরিবারকে হয়রানি করে চলেছে ভূমিদস্যু আলহাজ্ব আ. রাজ্জাক ভেন্ডার, সাবেক মেম্বার মহিবুল ও আলাউদ্দিন সহ বেশ কয়েকজন। এমনটাই অভিযোগ ভুক্তভোগি একাধিক পরিবার ও স্থানীয় বাসিন্দাদের।

সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগি পরিবারগুলোর সাথে কথা বলে জানা গেছে, চারদিকে দোকানপাট ও বাড়িঘর সহ রাস্তার ঠিক সাথে প্রায় ৪৫ শতাংশ জমি দখল করার উদ্দেশ্যে ২০০১ সাল থেকে জ্বাল দলিল বানিয়ে আ. রাজ্জাক ভেন্ডার ও সাবেক মেম্বার মহিবুলসহ কয়েকজন চেষ্টা চালিয়ে আসছে। একাধিকবার তাদের উপর হামলা চালিয়ে অনেককে আহতও করেছে রাজ্জাক ভেন্ডার গং। এক পর্যায়ে এসব ভুক্তভোগি পরিবারকে সাথে নিয়ে মৃত নুর মোহাম্মদের ছেল মো. হাবিবুর রহমান পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসক, স্থানীয় শ্রমিক নেতা, থানা পুলিশ সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ বরাবর এর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেন। কোনোভাবেই সমস্যার সমাধান করতে না পেরে শেষে আদালতের দারস্থ হন তিনি।

হাবিবুর রহমান বলেন, আমি পৈত্রিক ওয়ারিশসূত্রে প্রাপ্ত ও ক্রয়সূত্রে মিলিয়ে মোট সাড়ে ১৪ শতাংশ জমি ভোগদখল করে আসতেছি। আমার মতো আরো ২ পরিবারের ওয়ারিশগণ তাদের প্রায় ৩০ শতাংশ জায়গা সহ মোট ৪৫ শতাংশ জায়গার উপর কবরস্থান নির্মাণের নামে জোড়পূর্বক অবৈধ দখলের পায়তারা শুরু করে। ইতিমধ্যেই তারা ২০০১ সাল হতে কবরস্থানের জন্য নির্ধারিত জায়গা দেখিয়ে জোড়পূর্বক উক্ত জমিতে একটি সাইনবোর্ড লাগিয়ে রাখেন। কিছুদিন পূর্বে তারা ইট, বালি, সিমেন্ট নিয়ে আমাদের জায়গা দখল করতে এলে আমরা তাদের বাধা দেই। কিন্তু তারা তাদের সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে আমাদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। আমি সহ কয়েকজন আহত হই। এরপর তারা বিভিন্ন সময় আমাদেরকে হত্যা ও গুম করার হুমকি ধামকি দিয়ে চলেছে। তারা মূলত ‘কবরস্থানের’ নামে মানুষকে ধর্মীয়ভাবে ব্ল্যাকমেইলিং করে জমিটি হাতিয়ে নিয়ে প্লট নির্মাণ করে ব্যবসায়ীক ভাবে লাভবান হবার চেষ্টা করছে।

আরো এক ভুক্তভোগি মৃত হানিফ শেখের বৃদ্ধা স্ত্রী আনোয়ার বেগম এ প্রতিবেদককে জানান, আজ থেকে প্রায় ২২ বছর আগে এই জমি নিয়ে হামলা চালিয়ে তারা আমার স্বামীকে তালা দিয়ে মাথায় আঘাত করেন, তখনই আমার স্বামী মারা যায়। কিন্তু এরপরও তারা এতগুলো বছর ধরে আমাদের এই জমি জোড়পূর্বক দখল করে প্লট নির্মান করে বিক্রির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

একইভাবে এই জমির অন্যান্য ওয়ারিশদের মধ্যে ইনু ও বাবুল মিয়ার পরিবারের দাবি, শুধুমাত্র ধর্মীয় ও ইমুশনাল ব্ল্যাকমেইলিং করে জমিটি হাতিয়ে নেয়ার জন্যই কবরস্থান করার নামে এত বছর ধরে রাজ্জাক ভেন্ডার গংরা আমাদের হয়রানি করে চলেছে। একই অভিযোগ এলাকাবাসীরও।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উক্ত জমির মাত্র এক বাড়ি পরেই আরো একটি জায়গা কবরস্থানের নামে অবৈধ দখল করে ২টি প্লট করে বিক্রি করেছে রাজ্জাক ভেন্ডার।

এলাকাবাসী এ প্রতিবেদককে জানান, এনায়েতনগর চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামানের ছত্রছায়ায় থেকে রাজ্জাক ভেন্ডার কবরস্থান তৈরির নাম করে এভাবে একের পর এক জমি দখল করে প্লট করে বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে। শুধুমাত্র অবৈধ দখলকে নিরাপদ করার অসৎ উদ্দেশ্যে কবরস্থান নির্মাণের নাম প্রচার করে যাচ্ছে উক্ত দখলকারীরা।

এসময় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী প্রশ্ন রাখেন- এমন জনবহুল ও ঘনবসতিপূর্ণ রাস্তার সাথের জায়গায় কবরস্থানের মতো মানুষের শেষ শান্তির ঠিকানা নির্মাণ কতটা যুক্তিযুক্ত এবং কারো জমি জোড়পূর্বক দখল করে কবরস্থান নির্মাণ করা ইসলাম কি সমর্থণ করে?

তারা আরো প্রশ্ন রাখেন- কবরস্থানের নামে জোড়পূর্বক জমি দখল করে প্লট বিক্রি করে ব্যবসা করার কি কোনো শাস্তি নেই?

এদিকে পবিত্র কোরআন-হাদিস ও ইতিহাসের বিবরণ থেকে স্পষ্ট জানা যায়, অবৈধভাবে জমি দখল করে মসজিদ-মাদরাসা-কবরস্থান নির্মাণ করাকে ইসলাম সমর্থন করে না। আর অবৈধ দখলকে নিরাপদ করার অসৎ উদ্দেশ্যে কবরস্থান নির্মাণ করা কোনো ধার্মিকের কাজ নয়।

এ ব্যাপারে কবস্থানের উদ্দেশ্য উক্ত জমির দাবিদার সাবেক ইউপি মেম্বার মো. মহিবুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, ২০০১ সাল থেকে এই ৪৫ শতাংশ জমি আমরা কবরস্থানের নামে ওয়াকফা করেছি। তন্মধ্যে আমরা ৫জন মিলে ২০ শতাংশ জমি দান করেছি এবং বাকি ২৫ শতাংশ জমি দান করেছেন সাজাহান খান নামের ঢাকা নিবাসী এক ব্যক্তি। অথচ এখন এই জমির অসংখ্য দাবিদার (ওয়ারিশ) বেরিয়ে যেতে দেখে অবাক হচ্ছি।

তবে কবরস্থানের নামে দান করা ২৫ শতাংশ জমির সাবেক মালিক জনৈক সাজাহান খানের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে প্রতিবেদককে তথ্য দিতে রাজী হননি।

এলাকাবাসীর দাবি- তারা কেউই চায়না এমন একটি জনবহুল ও ঘনবসতিপূর্ণ ও মূল রাস্তার সাথের জমিতে কবরস্থান তৈরি হোক কিংবা কবরস্থানের নামে কেউ অন্যের জমি হাতিয়ে নিয়ে হামলা-মামলার নামে এলাকায় অশান্তির সৃষ্টি করুক। তাই তারা অতিসত্তর উক্ত সমস্যা সমাধানে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

মন্তব্য করুনঃ

এই বিভাগের অন্যান্য খবরঃ

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে নিভৃতে কাঁদছে মোতাহার
পতাকা বৈঠক করে ৪ বিজিপি সদস্যকে হস্তান্তর করলো বিজিবি
বাংলাদেশের সকল থানার ওসি'র মোবাইল নং
অভিযানে সওজের ১০ কোটি টাকার জায়গা উদ্ধার
সেন্টমার্টিনে ১লক্ষ পিস ইয়াবা উদ্ধার !!
ঈদের ছুটিতেও পর্যটকশূণ্য শাহপরীর দ্বীপ জেটি ঘাট
টেকনাফ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ
টেকনাফে আড়াই হাজার ইয়াবাসহ ১জন আটক করেছে র‍্যাব
উখিয়ায় পুলিশের অভিযানে ৪ দেশীয় তৈরী অস্ত্র,গোলা-বারুদসহ বিপূল পরিমাণ সামরিক বাহিনীর পোষাক উদ্ধার।
উখিয়া মহিলা কলেজ রোড রাস্তা নয় যেন রাস্তার পাশে ডাস্টবিন
কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের শুভ উদ্ভোদন করলেন প্রধানমন্ত্রী
পাহাড় কাটার দায়ে পিএইচপি’কে জরিমানা