পেঁয়াজ মজুদ থাকা সত্বেও বাজারে ১০০টাকা,টেকনাফের ক্রেতা বিপাকে !!

61

মিজানুর রহমান মিজান, আলোকিত বিডি, টেকনাফ  ::(পেয়াজের দাম শুনে কাত হয়ে পড়ে গেলেন ক্রেতা,ছবি:মিজানুর রহমান মিজান (

পেয়াজ প্রচুর পরিমান মজুদ থাকা সত্বেও বাজারে খুচরা ব্যবসায়ীরা দাম রাখছেন ১০০টাকা,যার ফলে টেকনাফের সাধারণ ক্রেতাগন পড়েছেন চরম বিপাকে। কোনোরকম পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই ভারত বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় এর প্রভাব পড়েছে দেশীয় বাজারে। রবিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) থেকে বাংলাদেশের বাজারে ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। ফলে এক শ্রেণির মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছে।

এ দিকে রান্নায় অতি প্রয়োজনীয় এ পণ্যটির কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ ক্রেতারা।

সাবরাংয়ের চাষী কলিম উল্লাহ ডালু ও টেকনাফ লামার বাজারের ব্যবসায়ী মোহাম্মদ তৈয়ব  নামে  ক্রেতা থেকে আজকের বাজার সম্পর্কে জানতে চাইলে জানান, প্রতিদিনের মতো আজকেও বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পেঁয়াজ কেনার সময় এক প্রকার অবাক হয়েছি। গত বাজারে পেঁয়াজ কিনেছি প্রতি কেজি ৬০ টাকা করে। এবারে একলাফে বেড়ে ১০০ টাকা করে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন দোকানদাররা। জিজ্ঞেস করলে ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলেছে। অথচ আমি শুনেছি মিয়ানমার থেকে প্রচুর পেঁয়াজ রপ্তানি হয়েছে। কিন্তু এর প্রভাব দেশীয় বাজারে পড়ছে না বলে এক ক্ষোভ প্রকাশ করেন এই ক্রেতা।

খোজ নিয়ে জানা যায়, ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিলেও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার। মিয়ানমার থেকে প্রচুর পেঁয়াজ রপ্তানি হয়েছে টেকনাফ স্থল বন্দরে। দেশীয় বাজারে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় মিয়ানমার থেকে আগের তুলনায় পেঁয়াজ আমদানি বাড়িয়েছে এখানকার ব্যবসায়ীরা।

সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে তিন হাজার ৫৭৩ টন। যার আমদানি মূল্য ১৫ কোটি ৫৫ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা। খালাসের অপেক্ষায় আছে পেঁয়াজ ভর্তি ১৫টি ট্রলার। মিয়ানমার থেকে রেকর্ড পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি হলেও স্থানীয় বাজারগুলোতেও এর প্রভাব পড়েনি। অতিরিক্ত মুনাফালোভীরা যে যার মতো দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছে। পেঁয়াজভর্তি আরও একাধিক ট্রলার স্থলবন্দরের পথে মিয়ানমার হতে রওনা দিয়েছে।

আমদানিকারকরা অভিযোগ করছেন, শ্রমিক অপর্যাপ্ততার কারণে পেঁয়াজ বোঝাই ১৫টি ট্রলার এখনো বন্দরে নোঙর করে আছে। এক্ষেত্রে বন্দরের শ্রমিক অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছেন ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মিয়ানমারের রপ্তানিকারকরা টন প্রতি গড় দাম ৩৫ হাজার টাকায় টেকনাফ স্থলবন্দর পর্যন্ত পৌঁছে দিচ্ছেন। আনুষাঙ্গিক খরচ যোগ করে মিয়ানমার থেকে আসা পেঁয়াজ টেকনাফ বন্দর কার্যক্রম শেষ পর্যন্ত কেজি প্রতি গড় দাম দাঁড়ায় ৩৬ থেকে ৩৭ টাকা মাত্র। কিন্তু টেকনাফের স্থানীয় বাজারেই ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের দাম হাকাচ্ছে ১০০ টাকা। আর টেকনাফ, কক্সবাজার বাজারসহ প্রসিদ্ধ বাজার গুলোতে এ দাম ১১০ থেকে ১২০ টাকা পর্যন্ত নেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে টেকনাফ স্থল বন্দর শুল্ক কর্মকর্তা মো. আবছার উদ্দিন বলেন, মিয়ানমার থেকে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ আসছে। সোমবার পর্যন্ত ৩ হাজার ৫৭৩ মেট্রিকটন পেঁয়াজ বন্দরের কার্যক্রম শেষ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ঘাটে পেঁয়াজভর্তি ডজনাধিক ট্রলার নোঙর করা আছে, বন্দরের উদ্দেশে মিয়ানমার ছাড়ছে আরও বেশ কয়েকটি ট্রলার। ফলে পেঁয়াজ আমদানি আরও বাড়তে পারে। এরপরও দামের এ তারতম্য বোধগম্য নয়।

তবে অভিযোগ উঠেছে, কোন কোন ক্ষেত্রে পেঁয়াজ গুদামজাত করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে পেঁয়াজের বাজার অস্তিতিশীল করার চেষ্টা করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। এক্ষেত্রে বাজার মনিটরিং এবং সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন সাধারণ ক্রেতারা।

সুত্র:জাতীয় দৈনিক অধিকার।

মন্তব্য করুনঃ

এই বিভাগের অন্যান্য খবরঃ

কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের শুভ উদ্ভোদন করলেন প্রধানমন্ত্রী
এবার ট্রেনের টিকিট কাটতে বাধ্যতামূলক হলো জাতীয় পরিচয়পত্র
মায়ের পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে!
টেকনাফে ৩ নারীর পেটে সাড়ে ৩ হাজার ইয়াবা!
ঢাকায় রোহিঙ্গা শিশুর জটিল হাইড্রোকেফালাস রোগের চিকিৎসা সম্পন্ন
সেন্টমার্টিনে ১লক্ষ পিস ইয়াবা উদ্ধার !!
নতুন বইয়ের সঙ্গে স্কুলড্রেসের টাকাও পাবে শিক্ষার্থীরা
উখিয়া ছেপটখালী মাদারবুনিয়া নিম্ন মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন করেন : সাবেক এমপি বদি-এমপ...
দৈনিক কালের কন্ঠ ও দেশবিদেশ পত্রিকায় সাবেক এমপি বদিকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি
ভ্যাকসিন হিরো পুরস্কার পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
এবার বালিশের কভারের দাম ২৮ হাজার টাকা!